Current Bangladesh Time
বৃহস্পতিবার জুলাই ২৭, ২০১৭ ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন
Barisal News
Latest News
প্রচ্ছদ » পিরোজপুর, পিরোজপুর সদর, মঠবাড়িয়া » ৩৫ বছর পর বাড়ি ফিরল মঠবাড়িয়ার নুরুল
১৭ জুলাই ২০১৭ সোমবার ৬:১৯:৩৮ অপরাহ্ন
Print this E-mail this

৩৫ বছর পর বাড়ি ফিরল মঠবাড়িয়ার নুরুল
ইসমাইল হোসেন হাওলাদার, মঠবাড়িয়া


হারানোর ৩৫ বছর পর বাড়ি ফিরলো মঠবাড়িয়ার নুরুল ইসলামদীর্ঘ ৩৫ বছর পর মঠবাড়িয়া উপজেলার উত্তর হলতা গ্রামে হারানো ছেলে ফিরে আসায় আনন্দের বন্যা বইছে।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) তার হরোনো ছেলে নুরুল ইসলাম(৫০) ফিরে এরে মা রিজিয়া বেগম(৭৫) ছেলেকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন। নুরুল ইসলামকে দেখতে প্রতিদিন শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করছে। উত্তর হলতা গ্রামের মৃত ইম্মাত আলীর ছেলে নুরুল ইসলাম ৪ ভাই বোনের মধ্যে এক বোনের মারা গেছে।

উত্তর হলতা গ্রামে সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, স্ত্রী ও ৪ সন্তানসহ ইম্মাত আলীর কোন ভিটে-মাটি ছিলনা। দিনে কামলা খেটে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে অর্ধাহার-অনাহারে থেকে রাতে ছোট ভাই হযরত আলীর জীর্ণ কুটিরের একাংশে ঠাঁই নিত।

নুরুল ইসলামের ১০/১১ বছর বয়স তখন ইম্মাত আলী মারা গেলে ছোট ছোট ৪টি সন্তান নিয়ে স্ত্রী রিজিয়া বেগমের উপর ঘোর অমানিষা নেমে আসে।

এসময়ে এলাকার এক আইনজীবি বাসার টুকিটাকি কাজ করার বিনিময়ে লেখাপড়া করাবে বলে নুরুল ইসলামকে ঢাকায় তার বাসায় নিয়ে যায়। বাসায় লেখাপড়ার পরিবর্তে নির্যাতনের শিকার হয়ে ১৮ মাস পরে বাসা থেকে পালায় নুরুল ইসলাম। সেই থেকে নিখোঁজ হয় নুরুল ইসলাম।

কিশোর নুরুল ইসলাম অচেনা ঢাকায় দিনে পানি ও সিদ্ধ ডিম বিক্রি করে রাতে ফুটপাতে কাটাত। এসময়ে পরিচয় হয় চট্টগ্রামের এক সরকারী চাকুরিজীবি মো. কবিরের সাথে। বাসায় কাজ করার জন্য তিনি নুরুল ইসলামকে চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ নিয়ে যান। কয়েক বছর পর (১৭/১৮ বছর পূর্বে) স্থানীয় ঝর্ণা আক্তার নামে এক মহিলাকে বিয়ে করে সংসার শুরু করে নুরুল ইসলাম।

বিয়ের পর নুরু বাড়িতে ফিরতে চাইলেও স্ত্রী বাঁধা দেয়। মানুষের ক্ষেতে কাজ করে যা পেত তা দিয়ে সংসার চলত না। অশান্তির সংসারে নুরু স্ত্রীর মানুষিক নির্যাতনের শিকার হয়। ২ বছর পূর্বে স্ত্রী ঝর্ণা তাদের মেয়ে জাকিয়া সুলতানা ও ছেলে ইসমাইল হোসেনকে নিয়ে নুরুকে ছেড়ে তার চাচাত ভাইয়ের সাথে চলে যায়।

এঘটনায় সে মনষিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পথে পথে ঘুরতে থাকে। ঘুরতে ঘুরতে এক পর্যায়ে নুরুল ইসলাম গত বৃহস্পতিবার নিজ গ্রামে চাচার বাড়িতে ফিরে আসে।

এদিকে নুরুকে খুঁজে পাবার আশা ছেড়ে দিয়ে ছোট ভাই টুটুল কয়েক বছর পর বোনদের বিয়ে দিয়ে মাকে নিয়ে ঢাকা চলে যায়। মা রিজিয়া বুধবার রাতে ছেলে বাড়ি ফেরার স্বপ্ন দেখে বৃহস্পতিবার বাড়ি থেকে মোবাইল ফোনে জানতে পারেন সত্যি সত্যিই তার ছেলে বাড়ি ফিরেছে। শুক্রবার টুটুল মা ও স্ত্রী সন্তানসহ বাড়ি আসলে এলাকায় এক আবেগ ঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

যে দারিদ্রতা দুর করতে ৩৫ বছর পূর্বে শিশু বয়সে নুরু বাড়ি ছেড়েছিল সে দারিদ্রতা এখনও তাকে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছে। মানষিকসহ নানান রোগ বাসা বেঁধেছে তার শরীরে। চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন।

আল্লাহর কাছে শুকরিয়া প্রকাশ করে মা রিজিয়া বলেন, “৩৫ বছর পর হলেও আমার কাছে যেন সেই শিশু নুরুই ফিরে এসেছে। এখন নাতিদেরও আনাতে চাই।”

ছোট ভাই টুটুল জানান, “ভাইকে ফিরে পেয়েছি তার চিকিৎসাসহ যা কিছু দরকার সবই করব।”

নুরুল ইসলাম জানান, মা ও ভাইকে নিয়ে সে আবার নতুন জীবন শুরু করতে চায়। মাথা গোঁজার জন্য এক খন্ড জমির জন্য সরকারের নিকট দাবী জানিয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন বেসরকারী সাহায্য সংস্থা ও বিত্তবানদেন সহযোগীতা কামনা করেছেন।

সম্পাদনা: বরি/প্রেস/মপ

শেয়ার করতে ক্লিক করুন:

আমাদের বরিশাল ডটকম -এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
(মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। amaderbarisal.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের মিল আছেই এমন হবার কোনো কারণ নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে amaderbarisal.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না।)
বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ
বরিশালের সেই বিচারককে প্রত্যাহারের সুপারিশ
উপকূলে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা, বন্দরে ৩ নম্বর সংকেত
ছাত্রলীগের নেতৃত্বে ববিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন
বরিশালে বৃষ্টিতে ভোগান্তি, নদী বন্দরে ১ নম্বর সংকেত
বরিশালে ৬৪ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড
Recent: Mayor Hiron Barisal
Recent: Barisal B M College
Recent: Tender Terror
Kuakata News

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
আমাদের বরিশাল ২০০৬-২০১৪

প্রকাশক: মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সম্পাদক: রাহাত খান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোঃ জিয়াউল হক
৪৬১ আগরপুর রোড (নীচ তলা), বরিশাল-৮২০০।
ফোন : ০৪৩১-৬৪৫৪৪, ই-মেইল: [email protected]