AmaderBarisal.com Logo

গলাচিপায় আকস্মিক বৃষ্টিতে ১৮১ কোটি টাকার ফসলের ক্ষতি


আমাদেরবরিশাল.কম

৯ মার্চ ২০১৯ শনিবার ৪:৫২:৩৭ অপরাহ্ন

patuakhali-news-map পটুয়াখালী সংবাদ মানচিত্র

পটুয়াখালীর গলাচিপায় হঠাৎ বৃষ্টি ও অতিরিক্ত বৃষ্টির কারনে আলু, তরমুজ, মরিচ, মুগডাল, খেশারী ডাল, ফেলন ডাল, মিষ্টি কুমরা সহ শাক-শব্জি ও বাদাম চাষীদের ক্ষেতে অতিরিক্ত বৃষ্টির কারনে পানি জমে যাওয়ায় ফসল পচন ধরার উপক্রম হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বর্ষা মৌসুমের মত অতিরিক্ত বৃষ্টির কারনে প্রতিটি ক্ষেতে পানি জমে ফসল তলিয়ে আছে। যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী ক্ষেতের পানি নিস্কাষনের জন্য সেলো মেশিন ও বালতি দিয়ে ক্ষেতের পানি নিস্কাষনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে কৃষকরা কোটি কোটি টাকা ক্ষতির সম্মূখীন হওয়ার আাশংকা করছেন।

এ ব্যাপারে আলু চাষী মুরাদ নগর ও বোয়ালিয়ার, মুছাব্বার, মামুন, মোশারেফ চৌকিদার ও জাকির ফকির জানান, আমরা প্রত্যেকেই দের একর ও ২ একর জমিতে আলু চাষ করেছি। শেষ মুহুর্তে এসে অতি বৃষ্টিতে আলু ক্ষেত পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় আলু গাছ ও আলুতে পচন ধরার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আলু ক্ষেত থেকে পানি নিস্কাষন করার জন্য বিভিন্ন রকমের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। যদি কোন রকম পচন দেখা দেয় তাহলে আমাদের পথে নামার উপক্রম হবে।

তরমুজ চাষী জয়নাল মলিøক কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমি ১ হেক্টর জমিতে তরমুজ চাষ করেছি, হঠাৎ অতি বৃষ্টি হওয়ায় ক্ষেতে পানি জমে তরমুজ গাছে ফাংগাস রোগে আক্রমন করেছে। ক্ষেত থেকে পানি নিস্কাষনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এর কারনে কিছু গাছ মরে গেছে। সুদে টাকা এনে তরমুজ চাষ করেছি।  যদি কোন রকমে তরমুজের ফলন না পাই তাহলে ঢাকা যাওয়া ছাড়া উপায় থাকবেনা।

মুগ ডাল চাষী সেন্টু পাল জানান, দের একর জমিতে মুগ ডাল চাষ করেছি। বৃষ্টির পানিতে ক্ষেত তলিয়ে গেছে। গাছ বাচানোর জন্য সেচের মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। হয়ত এভাবে থাকলে কিছু ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গলাচিপা সদর ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা উপ- সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, সাধারন কৃষকদের এই মুহুর্তে মাঠে থেকে ক্ষেত পরিদর্শন, পানি নিস্কাষন ও কিছু ক্ষেতে ছত্রাক নাশক স্প্রে করে পচন রোধে ব্যাবস্থা গ্রহন করার পরামর্শ দেন। উক্ত বিষয়ে গলাচিপা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ আর এম সাইফুলøাহ বলেন, অতি বৃষ্টির কারনে রবি ফসলের মধ্যে আলুর ক্ষতিই সবচেয়ে বেশী শতকরা ৪০%, তরমুজ শতকরা ৩০%, মুগ ডাল শতকরা ২০%, ফেলন ডাল শতকরা ১৫%, খেশারী ডাল শতকরা ২৫%, মরিচ শতকরা ১৫%, বাদাম শতকরা ১০% ও মিষ্টি কুমরা সহ শাকশব্জি শতকরা ১০% ফসল নষ্ট হয়েছে।



সম্পাদনা: বরি/প্রেস/মপ


প্রকাশক: মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন তালুকদার    সম্পাদক: মো: জিয়াউল হক
সাঁজের মায়া (২য় তলা), হযরত কালুশাহ সড়ক, বরিশাল-৮২০০। ফোন : ০৪৩১-৬৪৫৪৪, মুঠেফোন : ০১৮২৮১৫২০৮০ ই-মেইল : [email protected]
আমাদের বরিশাল ডটকম -এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।