Current Bangladesh Time
শনিবার এপ্রিল ২০, ২০১৯ ১০:২১ অপরাহ্ন
Barisal News
Latest News
প্রচ্ছদ » ভোলা, ভোলা সদর » ভোলায় নদী তীর সংরক্ষণে লক্ষাধিক মানুষের স্বস্তি
৬ এপ্রিল ২০১৯ শনিবার ৪:৩২:৩৯ অপরাহ্ন
Print this E-mail this

ভোলায় নদী তীর সংরক্ষণে লক্ষাধিক মানুষের স্বস্তি


bhola-news-map ভোলা সংবাদ মানচিত্র

ভোলা জেলা সদরে ব্লক ও জিও ব্যাগের মাধ্যমে মেঘনা পাড় সংরক্ষণে লক্ষাধিক মানুষের মাঝে স্বস্তি নেমে এসেছে। ১’শ ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের দরিয়া খাল থেকে ধনিয়া ইউনিয়নের তুলাতুলী মাছঘাট পর্যন্ত দীর্ঘ সাড়ে ৩ কিলোমিটার এলাকায় মেঘনা নদীর ভাঙ্গন রোধে পাড় সংরক্ষণ ও ভেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। নদী পাড় রক্ষার মাধ্যমে এ দুটি ইউনিয়নের মানুষের মধ্যে আশার আলো সঞ্চার হয়েছে। পূরণ হয়েছে স্থানীয়দের দীর্ঘ দিনের প্রাণের দাবি। তাই দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যেও এখন আর ভয় নেই মেঘনা পাড়ের এসব বাসিন্দাদের।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ‘ভোলা জেলা শহর সংরক্ষণ প্রকল্প তৃতীয় পর্যায়’ প্রকল্পের মাধ্যমে ২০১২-১৩ অর্থবছরে শুরু হয়ে জুন ২০১৬ তে সমাপ্ত হয় মেঘনা নদীর পাড় সংরক্ষণ কাজ। ৫ দশমিক ৮ মিটার উচ্চতার পাড়ের প্রস্থ ৪ দশমিক ৩০ মিটার। এ প্রকল্পের মাধ্যমে এখানে মোট ১৩ লাখ জিও ব্যাগ ও প্রায় ৮ লাখ সিসি ব্লক স্থাপন করা হয়েছে নদী শাসনের জন্য। ফলে ভাঙ্গন রোধে টেকসই কাজ হওয়াতে নিরাপত্তা বেড়েছে নদী তীরের মানুষের। নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন তারা।

সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: ইউনুছ বাসস’কে বলেন, প্রমত্ত মেঘনার করাল গ্রাসে বহু পরিবার সর্বহারা হয়েছে। বিগত দিনে ভাঙ্গন রোধে স্থায়ীভাবে কোন কাজ করা হয়নি। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে ভাঙ্গন বেড়ে যেত। এছাড়া অতি জোয়ার অথবা জলোচ্ছাসে প্লাবিত হতো গ্রামের পর গ্রাম। স্থানীয়দের প্রাণের দাবি ছিলো ব্লকের মাধ্যমে মেঘনার পাড় সংরক্ষণ ও মজবুত ভেড়িবাঁধ নির্মাণ করা। তিনি বলেন, অবশেষে বর্তমান সরকার বাঁধ স্থাপন করায় মানুষের জান-মাল রক্ষা পেয়েছে। বিগত কয়েক বছর থেকেই স্বস্তি ফিরে পেয়েছে এখানকার প্রায় এক লাখেরও বেশি মানুষ। নদী ভাঙ্গন বন্ধ হওয়ায় মানুষের কাজে-কর্মেও বাড়তি গতি এসেছে।

ভোলা স্বার্থ রক্ষা উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সাংবাদিক অমিতাভ রায় অপু মনে করেন, ভোলার মানুষের প্রধান সমস্যা হলো নদী ভাঙ্গন আতংক। আর মেঘনা নদীর কাচিয়া ও ধনিয়া ইউনিয়নের সাড়ে ৩ কিলোমিটার এলাকা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ পয়েন্ট। এ পয়েন্ট যদি ভেঙ্গে যায় তবে মূল শহর হুমকির মধ্যে পড়বে। আর এ জেলা শহরের উপর নির্ভর করে জেলার সকল উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা। তাই বাঁধ নির্মাণের ফলে শুধু ঐ অঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষ নয়, রক্ষা পেয়েছে পুরো জেলা সদর বলে মনে করেন এ উন্নয়নকর্মী। -বাসস

সম্পাদনা: বরি/প্রেস/মপ

শেয়ার করতে ক্লিক করুন:

আমাদের বরিশাল ডটকম -এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
(মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। amaderbarisal.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের মিল আছেই এমন হবার কোনো কারণ নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে amaderbarisal.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না।)
শহীদ মিনারে অশ্লীল নাচ-গান, তদন্তে কমিটি
‘চোর চোর চিৎকার করায় শাবল দিয়ে খুন করা হয় মারুফাকে ’
মঙ্গলবার থেকে আরো বাড়ছে তাপমাত্রা
ধর্ষণ ও হত্যায় দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল গঠন করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আহ্বান তোফায়েলের
স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌঁছেছে : প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক
Recent: Mayor Hiron Barisal
Recent: Barisal B M College
Recent: Tender Terror
Kuakata News

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
আমাদের বরিশাল ২০০৬-২০১৪

প্রকাশক ও নির্বাহী সম্পাদক: মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সম্পাদক: রাহাত খান
৪৬১ আগরপুর রোড (নীচ তলা), বরিশাল-৮২০০।
ফোন : ০৪৩১-৬৪৫৪৪, ই-মেইল: [email protected]