Current Bangladesh Time
রবিবার মার্চ ২৯, ২০২০ ১১:৩৪ পূর্বাহ্ন
Barisal News
Latest News
প্রচ্ছদ » ভোলা, ভোলা সদর » ভোলায় হোগলা পাতার দড়িতে ভাগ্যবদল
৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০ শনিবার ৬:০৩:৩৯ অপরাহ্ন
Print this E-mail this

ভোলায় হোগলা পাতার দড়িতে ভাগ্যবদল


ভোলায় হোগলা পাতার দড়িতে ভাগ্যবদল

অনলাইন ডেস্ক::: ভোলা জেলার উপজেলা সদরে হোগলা পাতার দড়ি তৈরি করে নারীরা স্বাবলম্বী হচ্ছে। হোগলা পাতা রোদে শুকিয়ে চিকন করে তার অংশ ছিড়ে হাতে পাকিয়ে তৈরি হচ্ছে চমৎকার সূতলি বা দড়ি। স্থানীয় পাইকাররা বাড়িতে এসে এসব দড়ি কিনে ঢাকায় আরো বেশি দামে বিক্রি করছেন।

সদরের চর সামাইয়া, ভেদুরিয়া, ছিপলী, ভেলুমিয়া, আলিনগর, বাপ্তা, রতনপুর, ইলিশা, শীবপুর, রাজাপুরসহ কয়েকটি গ্রামে কয়েক হাজার নারী এ হস্ত শিল্পের সাথে নিজেদের সমৃক্ত করে অবস্থার পরিবর্তন করেছেন। একইসাথে পরিবারে বাড়তি উপার্জনে স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে অনেকের। বহু নারী কঠোর পরিশ্রম করে ভাগ্য বদল করেছেন। বিশেষ এ দড়ি দিয়ে ঢাকায় চেয়ার, সোফা, মোড়া, পাপশ, শোপিসসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।

সরেজমিনে জানা যায়, প্রতি হাজার হাত দড়ি পাইকারদের কাছে বিক্রি করা হয় ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা দরে। আর এতে সময় লাগে ২ থেকে ৩ ঘন্টা। একজন নারী সংসারে কাজ শেষ করে মাসে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকার দড়ি বিক্রি করতে পারেন। নদী তীরবর্তী বিভিন্ন এলাকা থেকে এসব হোগলা পাতা সংগ্রহ করা হয়। মূলত হোগলা পাতার সহজলোভ্যতার কারণে দড়ি বিক্রির প্রায় পুরোটাই লাভ হিসেবে থাকে। বাড়ির উঠানে নারীদের পাতা নিয়ে বস্ত’ থাকতে দেখা যায়। কেউ পাতা শুকাচ্ছেন, কেউ রোদে দিচ্ছে আবার কেউ হাতে পাকিয়ে দড়ি তৈরিতে মগ্ন।

সদর উপজেলার শীবপুর ইউনিয়নের রতনপুর এলাকায় রীতা বেগম ও সুফিয়া খাতুনের সাথে কথা হয়। তাদের দুজনের স্বামীই দীনমজুরের কাজ করে। ৩/৪ বছর হলো তারা দড়ি বানাচ্ছেন। তাদের এখানে অনেক নারীই অবসরে দড়ি বানিয়ে বিকল্প কর্মসংস্থানের পথ সৃষ্টি করেছেন। রীতা ও সুফিয়া বাসস’কে বলেন, সকাল থেকে সংসারের কাজ করে দুপুরের পরই সাধারণত তারা দড়ি বানাতে বসেন। দৈনিক একজনে ২’শ থেকে আড়াই’শ টাকার দড়ি বানাতে পারেন। অবশ্য সময় বেশি দিলে আরো বেশি কাজ করা যায় বলে জানান তারা।

চরসামইয়া ইউনিয়ন পরিষেদ চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন মাতাব্বর বাসস’কে বলেন, নারীদের দড়ি তৈরি করার উদ্যোগ একটি ভালো কাজ। আমার ইউনিয়নে প্রায় ৬’শ নারী রয়েছেন যারা দড়ি তৈরি করে বিক্রি করেন। এর মাধ্যমে পল্লী অঞ্চলের নারীরা তাদের কর্ম যোগ্যতা প্রমাণ করছেন। তবে তাদের পারিশ্রমিকটা অনেক কম পড়ে যায়। আমাদের ইউনিয়ন পরিষদ পক্ষ থেকে তাদের বিভিন্ন সরকারি সুযোগ সুবিধা দিয়ে থাকি।

ভোলা উদ্যেক্তা সৃষ্টি ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্পের প্রশিক্ষণ সমন্বয়ক মো: আরিফ হোসেন বাসস’কে জানান, এ অঞ্চলের নারীরা অত্যন্ত পরিশ্রমী ও কর্মঠ। গ্রামীণ নারীদের হস্ত শিল্পের উপর প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরো দক্ষ উদ্যেক্তা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। যাতে করে নারীরা নিজেরাই তাদের উৎপাদিত দড়ি দিয়ে বিভিন্ন কুটির শিল্পের বিভিন্ন আসবাব পত্র তৈরি করতে পারে। আর এতে করে নারীরা তাদের কাজের সঠিক মুজুরি পাবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। -বাসস

সম্পাদনা: বরি/প্রেস/মপ

শেয়ার করতে ক্লিক করুন:

আমাদের বরিশাল ডটকম -এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
(মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। amaderbarisal.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের মিল আছেই এমন হবার কোনো কারণ নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে amaderbarisal.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না।)
ব্রিজ ভাঙায় ভাগ্য খুলছে জনপ্রতিনিধিদের!
বাউফলে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান
কৃষকদের হয়রানি করলে ছাড় নয়: খাদ্যমন্ত্রী
রিফাত হত্যা : ভিডিও ডাউনলোডের পেন ড্রাইভ সনাক্ত
সাগর-রু‌নির হত্যার তদন্তে পু‌লি‌শের ব্যর্থতা বলা যা‌বে না: আইজিপি
Recent: Mayor Hiron Barisal
Recent: Barisal B M College
Recent: Tender Terror
Kuakata News

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
আমাদের বরিশাল ২০০৬-২০২০

প্রকাশক ও নির্বাহী সম্পাদক: মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সম্পাদক: রাহাত খান
৪৬১ আগরপুর রোড (নীচ তলা), বরিশাল-৮২০০।
ফোন : ০৪৩১-৬৪৫৪৪, ই-মেইল: hello@amaderbarisal.com