Current Bangladesh Time
মঙ্গলবার নভেম্বর ২১, ২০১৭ ১১:২৭ অপরাহ্ন
Barisal News
Latest News
প্রচ্ছদ » বরিশাল, বানারীপাড়া » আম আর প্রেম নিয়ে দ্বন্দে স্কুল ছাত্র হত্যা
৬ জুলাই ২০১৫ সোমবার ৬:১২:৫১ অপরাহ্ন
Print this E-mail this

আম আর প্রেম নিয়ে দ্বন্দে স্কুল ছাত্র হত্যা
নিজস্ব প্রতিবেদক


বরিশাল সংবাদ মানচিত্রবানারীপাড়ায় আম আর প্রেম নিয়ে দ্বন্ধে দশম শ্রেনীর ছাত্র ফয়সাল মীর ইমরান হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে বিচারকের কাছে স্বীকারোক্তিমুলক (১৬৪ ধারায়) জবানবন্দি দিয়েছে সহপার্টি।

সোমবার বরিশাল জেষ্ঠ্য বিচারবিভাগীয় হাকিম তরুন বাছাড়েরর কাছে জবান বন্দি দেয় সহপার্টি হেলাল খাঁন ওরফে লালচান (১৬)।

সে উপজেলার বালীপাড়া গ্রামের মো. নুরুল ইসলামের ছেলে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জাকির হোসেন খাঁন জানান, ইমরানের লাশ উদ্ধারের সময় লালচানের কথাবার্তায় সন্দেহ হওয়ায় তাকে নজরদারীতে রাখা হয়। তার দেয়া তথ্য মিলে যাওয়া লালচানকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে লাল চান হত্যার কথা স্বীকার করে।

জবানবন্ধিতে লালচান উল্লেখ করে, দরিদ্র সে লেখাপড়া না করায় বন্ধু ইমরান সব সময় তার উপর খবরদারি করতো। এতে সে ইমরানের উপর ক্ষুদ্ধ ছিলো। এর জেরে গত ১ জুলাই ইমরানকে একটি আম কিনে দেয়। ওই আম নিয়ে ইমরান তার প্রেমিকাকে দেয়। এতে লালচান ক্ষুদ্ধ হয়ে হেলালকে চড় দেয়। তখন ইমরান তাকে ধাক্কা দিয়ে ডোবায় ফেলে বাসায় যায়।

ইমরানের অসুস্থ বাবা চিকিৎসার জন্য সবাই ঢাকা থাকায় বাসায় সে একা ছিলো।

সন্ধ্যার ইমরানের বাসার পিছন দিয়ে ঘরে প্রবেশ করে খাটের ইট সরিয়ে ফেলে বের হয়ে আসে। কিছুক্ষন পর ফোন দিয়ে বাসায় যায়। সেখানে অপর বন্ধু নুরে আলম তাকে দেখে চলে যায়।

তখন তার টাকায় কেনা আম দিয়ে প্রেম করার জন্য ইমরানকে তিরস্কার করা হয়। ইমরান পাল্টা তিরস্কার করলে ক্ষিপ্ত ইমরানকে ধাক্কা দেয়।

এই সময় ইমরানে মোবাইল ফোন সেট হাত থেকে পড়ে খুলে যায়। তখন এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্ক হয়। ইমরান বিছানায় শুয়ে মোবাইল ফোন ঠিক করার সময় টেবিলের উপর থাকা দা দিয়ে তার মাথায় পরপর দুইবার আঘাত করে। এতে মারা যায় ইমরান।

রক্ত দেখে সে অজ্ঞান হয়ে পড়লেও কিছুক্ষন পর জ্ঞান ফিরে পায়। জ্ঞান ফিরে পেয়ে রক্ত মুছে ইমরানকে তোষক দিয়ে ঢেকে রেখে ঘর তালাবদ্ধ করে চলে যায়। পর দিন এসে ইমরানের পায়ে ইট বেধে ঘরের পাশের ডোবায় ফেলে।

রক্তমাখা ইমরানের বিছানার চাদর বালিশ অপর একটি ডোবায় ফেলে ঘরে গিয়ে মোবাইল ফোন সেট নিয়ে রক্তমাখা স্থান কাদা দিয়ে আস্তর দিয়ে চলে যায়। মোবাইল ফোন লক থাকায় ঠিক করতে ব্যর্থ হয়ে নদীতে ফেলে দেয়।

ছেলে ইমরানের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় মা তাছলিমা বেগম ঢাকা থেকে বাড়িতে এসে পিছনের ডোবায় রক্ত মাখা বালিশ ও বিছানার চাদর ভাসমান অবস্থায় পায়। পাশের ডোবায় ইমরানের লাশ পায়।

লালচান গত বছরের মার্চ মাসে নগরী থেকে মুক্তিপণের জন্য এক শিশু কন্যাকে অপহরন করে। পরে বালীপাড়া গ্রামের বাড়িতে আটকে রাখার পর র‌্যাব অপহৃত ওই শিশুকে উদ্ধার ও তাকে আটক করে।

সম্পাদনা: আমাদের বরিশাল ডেস্ক

শেয়ার করতে ক্লিক করুন:

আমাদের বরিশাল ডটকম -এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
(মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। amaderbarisal.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের মিল আছেই এমন হবার কোনো কারণ নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে amaderbarisal.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না।)
বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ
বাবা ভেবেছিলেন ছেলে আর ফিরবে না
শেবাচিমে রোগীর স্বজন-চিকিৎসকদের মধ্যে মারামারি
বেতাগীতে লাভ জনক কৃষি পণ্য সুপারি
মালয়েশিয়ায় সংগ্রামী জীবন ঝালকাঠির নাসিরের
পটুয়াখালীর পায়রা বন্দরে চাকরির সুযোগ
Recent: Mayor Hiron Barisal
Recent: Barisal B M College
Recent: Tender Terror
Kuakata News

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
আমাদের বরিশাল ২০০৬-২০১৪

প্রকাশক: মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সম্পাদক: রাহাত খান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোঃ জিয়াউল হক
৪৬১ আগরপুর রোড (নীচ তলা), বরিশাল-৮২০০।
ফোন : ০৪৩১-৬৪৫৪৪, ই-মেইল: [email protected]